shubhobangladesh

সত্য-সুন্দর সুখ-স্বপ্ন-সম্ভাবনা সবসময়…

চলচ্চিত্রের সোনালী দিনের নায়ক ওয়াসিম চলে গেলেন

Wasim
Wasim

চলচ্চিত্রের সোনালী দিনের চিত্রনায়ক ওয়াসিম চলে গেলেন। আজ রোববার রাত ১২.৪০ মিনিটে রাজধানীর শাহাবউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান তিনি। চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি সূত্রে এ-তথ্য জানা গেছে।

বেশ কিছুদিন ধরে তিনি গুরুতর অসুস্থ ছিলেন। অসুস্থতার কারণে হাঁটতে পারছিলেন না, বিছানায় শুয়েই কাটছিল সময়। এসব তথ্য জানিয়েছেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।

তিনি ফেসবুকে লেখেন, ‘রাজকীয় ছবি মানেই ওয়াসিম ভাই। অনেক ছবি সুপারহিট দিয়েছেন তিনি। কিছুদিন ধরে অনেক অসুস্থ, হাঁটতে পারছেন না। বিছানাতে শুয়েই কাটছে সময়। সবার কাছে দোয়া চাচ্ছি ওয়াসিম ভাইয়ের জন্য।’ এর পর তিনি রাতে মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ‘আমরা তার রুহের মাগফিরাত কামনা করছি।’ জায়েদ খান আরো জানান, তিনি (ওয়াসিম) করোনায় আক্রান্ত ছিলেন না।

এক সময় বাণিজ্যিক-অ্যাকশনের পাশাপাশি ফোক-ফ্যান্টাসি সিনেমার এক নম্বর আসনটি দখলে ছিল ওয়াসিমের। ১৯৭২ সালে ঢাকাই সিনেমাতে ওয়াসিমের অভিষেক হয় সহকারী পরিচালক হিসেবে ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’র মাধ্যমে। আর নায়ক হিসেবে তার যাত্রা শুরু হয় মহসিন পরিচালিত ‘রাতের পর দিন’ সিনেমার মাধ্যমে। দিন যতই যেতে থাকে ওয়াসিমের জনপ্রিয়তা ততই আকাশচুম্বী হয়। এক সময় বাণিজ্যিক ঘরানার সিনেমায় অপরিহার্য নায়ক হয়ে ওঠেছিলেন তিনি।

তাঁর অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে রয়েছে—রাতের পর দিন, দোস্ত দুশমন, দি রেইন, রাজদুলারী, বাহাদুর, মানসী, সওদাগর, নরম গরম, বেদ্বীন, ঈমান, লাল মেম সাহেব, ডাকু মনসুর, জিঘাংসা, কে আসল কে নকল, দুই রাজকুমার, আসামি হাজির, মিস লোলিতা, চন্দন দ্বীপের রাজকন্যা, লুটেরা, জীবন সাথী, রাজনন্দিনী, রাজমহল, বিনি সুতার মালা, বানজারান ইত্যাদি। ওয়াসিম

নব্বই দশকের পর থেকে ক্রমশ সিনেমা দূরে সরে দাঁড়ান। দীর্ঘদিন তাঁর নতুন কোনো সিনেমা মুক্তি পায়নি।

চলচ্চিত্রের সোনালী দিনের নায়ক ওয়াসিম চলে গেলেন

একনজরে ওয়াসিম

১৯৭৩ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত চলচ্চিত্রে শীর্ষ নায়কদের একজন। ওয়াসিম চলে গেলেন

১৯৭২ সালে সহকারী পরিচালক হিসেবে চলচ্চিত্রে অভিষেক। ওয়াসিম

১৯৭৪ সালে মহসিন পরিচালিত ‘রাতের পর দিন’ সিনেমার মাধ্যমে নায়ক রূপে আবির্ভাব। প্রথম ছবিতেই বাজিমাত; পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি আর।

১৯৭৬ সালে এস এম শফী পরিচালিত ‘দি রেইন’ সিনেমা ব্যাপক পরিচিতি এনে দেয়।

ওয়াসিমের বিপরীতে জনপ্রিয় অনেক নায়িকা অভিনয় করেছেন—অলিভিয়া, রোজিনা, অঞ্জু ঘোষ, কবরী, শাবানা, সুজাতা প্রমুখ। সবমিলিয়ে ১৫২টি ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি।

কালজয়ী অভিনেতা ওয়াসিম ১৯৪৭ (মতান্তরে ১৯৫০) সালের ২৩ মার্চ চাঁদপুর জেলার মতলবে জন্মগ্রহণ করেন। পুরো নাম : মেজবাহ উদ্দীন আহমেদ। পড়াশোনা : ইতিহাসে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি।

চিত্রনায়িকা রোজীর ছোট বোনকে বিয়ে করেন তিনি। তাদের এক ছেলে এক মেয়ে : দেওয়ান ফারদিন ও বুশরা আহমেদ। ২০০০ সালে স্ত্রীর অকালমৃত্যু ঘটে। ২০০৬ সালে কন্যা বুশরা আহমেদ চৌদ্দ বছর বয়সে মানারাত ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের পাঁচতলা থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেন; পরীক্ষা চলাকালীন নকলের অভিযোগ তার পরিবারকে জানাবার প্রাক্কালে বাথরুমে যাওয়ার কথা বলে ছাদ থেকে লাফ দেন। অন্যদিকে, পুত্র ফারদিন লন্ডনের কারডিফ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলএম পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ব্যারিস্টার হিসেবে আইন পেশায় নিয়োজিত।

ওয়াসিমের মূল নেশা ছিল বডি বিল্ডিংয়ে। ১৯৬৪ সালে তিনি বডি বিল্ডিংয়ের জন্য ‘মিস্টার ইস্ট পাকিস্তান’ খেতাব অর্জন করেছিলেন।

—শুভ বিনোদন প্রতিবেদক

Spread the love