শনিবার, জানুয়ারি ২৩সত্য-সুন্দর সুখ-স্বপ্ন-সম্ভাবনা সবসময়...

কবিতায় ‘আমি’

1 0
Read Time:6 Minute, 21 Second
How many problems I am in
খুচরো কথা চারপাশে

কবিতায় ‘আমি’

সুনীল শর্মাচার্য

কবিতায় ‘আমি’

কবিতা যারা পড়েন, তারা লক্ষ্য করবেন কবিতায় ‘আমি’ শব্দটি প্রচুর ব্যবহার হয়। ভেবে দেখুন, ‘আমি’র মতন সহজ এবং জটিল ধারণা সত্যিই কম আছে। এই ‘আমি’ শব্দটি ব্যবহার না-করে দুটো সাধারণ কথাও আমরা বলতে অক্ষম :

তার সঠিক ব্যাখ্যা করতে হলে আমরা নানা ঐতিহ্যের জটিলতম চিন্তাধারায় ডুবে যাই এবং সেই অথৈ সমুদ্র থেকে ফিরে এসে যদি দেখি যে, এই সহজ, ব্যবহারিক ‘আমি’ কবিদের কাছে কত রূপে, কত ভাবার্থে প্রয়োগে জটিল।

প্রাচীন সাংখ্য দর্শনের ক’টি মৌলিক তত্ত্বের মধ্যে একটা হলো ‘অহংকার’, অর্থাৎ একটি লোকায়ত সংজ্ঞার অনুসারে ‘যা আমি-র সৃষ্টি করে’। এর তাৎপর্য এই যে, ‘আমি’টি মানুষ নামক জীবের একটি জরুরি অবদান, কিন্তু তত্ত্বগুলির ক্রমান্বয়ে সেটা পুরুষ বা নারী প্রকৃতির মধ্যে ‘অহম’ ধারণা ‘আমিত্বে’ মৌলিক হয়ে ওঠে।

মানুষ মাত্রের এক-একটি ‘আমি’র কল্পনাই প্রচলিত নিয়ম। এই নিয়মের আবার ব্যতিক্রমও ঘটে, যেমন—ফরাসি কবি রঁ্যবোর বিখ্যাত উক্তি—‘je est un autre’,

‘আমি আর এক’ অথবা উত্তরাধুনিক বহুখণ্ডিত ‘আমি’র কল্পনায়। আসলে এই ‘আমি’র বিস্তার ব্যবহার কবিতাতে পাই আমরা। কিন্তু কবিতায় ‘আমি’ যে সরাসরি কবি নয়, তা জানা কথা। সাধারণত lyrical self-এর অভিধা দিয়ে

এই ব্যবধান চিহ্নিত হয়। কবির ‘আমি’ হয়তো কবির স্বাভাবিক ‘আমি’র একটি চলমান প্রতিবিম্ব কিংবা ভঙ্গি হিসাবে ধরতে পারি—এমন একটি দৃষ্টিভঙ্গি যেটা এই আসল ‘আমি’টির বা ‘আমি’রা ব্যবহার করে। এভাবে দেখতে গেলে নানা রকম ‘আমি’ সৃষ্টি করা সত্যি কবিমাত্রের অহংকারের কথা!

‘আমি’র খেয়াল-খুশি ব্যাপক ব্যবহার প্রত্যেক কবির মধ্যে দেখা যায়। ইদানীং আমাদের সময়টা আরো দুর্জ্ঞেয় চ্যালেঞ্জ নিয়ে আমাদের দিকে তাকিয়ে আছে। এখানে একজন কবির যে-ব্যক্তিত্বটা গড়ে উঠছে, সেই ব্যক্তিত্বটা তো পরের কবিতায় চুরমার হয়ে আবার আর একটা ব্যক্তিত্ব গড়ে উঠছে।

এই ‘আমি’র ধারণা অনেক কিছুর প্রচলিত স্বধর্ম পালনে অনিচ্ছুক হয়ে পড়ে। সৃষ্টি, মানুষ, গাছপালা জাতীয় সাধারণ বর্গগুলিও গলে গিয়ে মিশে যাওয়া এবং পরিবর্তমান ‘আমি’র পরিক্রমা সৃষ্টি করে।

কবিতায় ‘আমি’টি কতটা কর্তা আর কতটা কর্ম, তাও জিজ্ঞাসায় জিজ্ঞাসায় ব্যাপ্ত। এই ‘আমি’টিই হয়ে ওঠে সমস্ত ঘটনার নিয়ন্তা। ‘আমি’ কখনো কখনো Polyphony অর্থাৎ বহুতানিকতার আকার।

এইভাবেই ‘আমি’ বিস্তৃত হয়ে গেলে মাঝে মাঝে স্ববিরোধিতার বিপত্তি ঘটায়। কিন্তু কবিরা এই ‘আমি’র মধ্যে negative capability (নঞর্থক ক্ষমতা)-র জন্মও দেয়—যা স্ববিরোধিতার মধ্যে কবিতার ‘আমি’ কর্তাকর্মের দ্বন্দ্বের বাইরে—আসলে হয়ে ওঠে ক্রিয়া।

তখন ‘আমি’’টা যতটা কবিতার, ততটা কবির নয়। ‘আমি’র বেলায় যা হয়তো বাঞ্ছিত, কবিতার ‘আমি’র বেলায় তা সত্যও বটে, পুরুষ বা নারী প্রকৃতির অনেক গভীরে তার অবস্থান, তা ভেঙে চুরমার হয়ে আবার নতুন করে গড়ে ওঠা কবির কাছে একটা সহজ ব্যাপার।

…………………

পড়ুন

কবিতা

সুনীল শর্মাচার্যের একগুচ্ছ কবিতা

সুনীল শর্মাচার্যের ক্ষুধাগুচ্ছ

লকডাউনগুচ্ছ : সুনীল শর্মাচার্য

সুনীল শর্মাচার্যের গ্রাম্য স্মৃতি

গল্প

উকিল ডাকাত : সুনীল শর্মাচার্য

এক সমাজবিরোধী ও টেলিফোনের গল্প: সুনীল শর্মাচার্য

আঁধার বদলায় : সুনীল শর্মাচার্য

প্রবন্ধ

কবির ভাষা, কবিতার ভাষা : সুনীল শর্মাচার্য

ধর্ম নিয়ে : সুনীল শর্মাচার্য

মুক্তগদ্য

খুচরো কথা চারপাশে : সুনীল শর্মাচার্য

কত রকম সমস্যার মধ্যে থাকি

শক্তি পূজোর চিরাচরিত

ভূতের গল্প

বেগুনে আগুন

পরকীয়া প্রেমের রোমান্স

মুসলমান বাঙালির নামকরণ নিয়ে

এখন লিটল ম্যাগাজিন

যদিও সংকট এখন

খাবারে রঙ

সংস্কার নিয়ে

খেজুর রসের রকমারি

‘দ্য স্যাটানিক ভার্সেস’ পাঠ্যান্তে

মোবাইল সমাচার

ভালো কবিতা, মন্দ কবিতা

ভারতের কৃষিবিল যেন আলাদিনের চেরাগ-এ-জিন

বাঙালিদের বাংলা চর্চা : খণ্ড ভারতে

দাড়ি-গোঁফ নামচা

নস্যি নিয়ে দু-চার কথা

শীত ভাবনা

উশ্চারণ বিভ্রাট

কাঠঠোকরার খোঁজে নাসা

ভারতীয় ঘুষের কেত্তন

পায়রার সংসার

রবীন্দ্রনাথ এখন

কামতাপুরি ভাষা নিয়ে

আত্মসংকট থেকে

মিসেস আইয়ার

ফিরবে না, সে ফিরবে না

২০২১-শের কাছে প্রার্থনা

ভারতে চীনা দ্রব্য বয়কট : বিষয়টা হাল্কা ভাবলেও, সমস্যাটা কঠিন এবং আমরা

রাজনীতি বোঝো, অর্থনীতি বোঝো! বনাম ভারতের যুবসমাজ

কবিতায় ‘আমি’

Happy
Happy
0 %
Sad
Sad
0 %
Excited
Excited
0 %
Sleepy
Sleepy
0 %
Angry
Angry
0 %
Surprise
Surprise
0 %

Average Rating

5 Star
0%
4 Star
0%
3 Star
0%
2 Star
0%
1 Star
0%

One thought on “কবিতায় ‘আমি’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *