shubhobangladesh

সত্য-সুন্দর সুখ-স্বপ্ন-সম্ভাবনা সবসময়…

শেরপুরে ছোটকাগজ চর্চা – ২৪তম পর্ব

Little Magazine
Little Magazine

শেরপুরে ছোটকাগজ চর্চা – ২৪তম পর্ব

জ্যোতি পোদ্দার

শেরপুরে ছোটকাগজ চর্চা – ২৪তম পর্ব

চব্বিশ

‘বালার্ক’ কবি সংসদ বাংলাদেশ শেরপুর শাখার মুখপত্র। ‘বালার্কে’র অর্থ নবোদিত সূর্য্য। ১৯৯৯ সালে ৮ অক্টোবর কবি তালাত মাহমুদকে উপদেষ্টা করে শেরপুর জেলা শাখার যাত্রা শুরু করে। সেই সময়ে গঠিত সংসদের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব নেন যথাক্রমে কবি আনিছুর রহমান ও কবি হারুন অর রশিদ।

কবি সাজ্জাদ আহমেদ সাহিত্য সম্পাদক। যদিও বালার্কের সম্পাদনা করেছেন বিভিন্ন সংখ্যায় বিভিন্ন জন। কখনো সাজ্জাদ মাহমুদ মমিন, কখনো আইয়ুব আকন্দ বিদ্যুৎ অথবা কখনো অন্য কেউ।

জাতীয় দিবস কেন্দ্রিক নিয়মিত অনিমিতভাবে ‘বালার্ক’-এর কার্যক্রম চোখে পড়ার মতো এই এক ফর্মার কাগজটি। গত বিশ বছরে নিয়মিত বা অনিয়মিতভাবে সাহিত্যসভা করেছেন। করেছেন কবি সন্মেলন, বঙ্গবন্ধু কবিতা উৎসব ও ১৩তম বাংলা সাহিত্য সন্মেলন। শেরপুরে কবি সংগঠনের ভেতর এদের কর্মতৎপরতা সুধী সমাজের দৃষ্টি কেড়েছে। ২০১৯ সালের এপ্রিলে শেরপুরসহ দেশের ১৪ জন কবিকে কবি জসীমউদ্‌দীন সাহিত্য পুরস্কারে পুরস্কৃত করেন শেরপুর জেলা শাখা।

এই সন্মেলনে উপস্থিত ছিলেন—ছড়াকার রফিকুল হক দাদুভাই-সহ ছড়াকার আমিনুল রানা, হানিফ খান, স্বপন ধরসহ কবি সংসদের কেন্দ্রীয় সভাপতি তৌহিদুল ইসলাম কনক। কনক ১৯৯৮ সালে ঢাকার বিউটি বোডিংয়ে এই কবি সংসদ প্রতিষ্ঠা করেন।

কবি দীন শঙ্করানন্দ স্বাধীনতা দিবস ২০০৭ সংখ্যায় লিখেছেন—

.

অশান্ত অর্নব

অম্বুদ, অঝরে—

অবিরল অবিশ্রান্তে

অষ্ট প্রহর

অরুণ অদৃশ্য!

অম্বুদ অস্বচ্ছ

অপরিস্ফুট, অন্ধকার

অখিল।

(অধিবাসের অপাঙক্তেয় অখিল)

.

কবির পঁচিশ লাইনের প্রতিটি শব্দ শুরু হয়েছে স্বরবর্ণের ‘অ’ আকার দিয়ে। এ ছাড়া লিখেছেন—শিব শংকর কারুয়া, তালাত মাহমুদ, আইরীন আহমেদ লিজা প্রমুখ।

আখতারুজ্জামান তার ‘গাঁও গেরামের কথা’ কবিতাগুচ্ছে লিখেছেন—

.

১.

প্রেম পিরিতি বাঁশের ঝাঁড়

চিঠির চালাচালে

আসল মজা চলেই গেছে

মোবাইল ডিজিটালে।

২.

চ্যাপা শুটকি পুইড়া তাতে

পেঁয়াজ মরিচ মাখি

আউশ ধানের ভাত খাইতে

ছিল কি কেউ বাকি?

.

শেরপুরের আঞ্চলিক কথনে ছড়াকার আক্তারুজ্জামান লিখেছেন তার কবিতাগুচ্ছ।

কবি সংসদের দীর্ঘদিনের নানা তৎপরতার পরও তাদের প্রকাশনাগুলো সাহিত্য পত্রিকার যে সকল গুণাবলী থাকে, সেগুলো ঠিক ঠিক ফুটে ওঠেনি। কবিতা নির্বাচন, সেট আপ, বাঁধাই প্রচ্ছদসহ বানান বিভ্রাট লক্ষণীয়। তার পরও তাদের প্রকাশনাসহ নানামুখী তৎপরতা জারি রেখেছে।

টাউন শেরপুরে ছড়াকারদের একটিই কাগজ—তাও অনিয়মিত। নানা কারণে শুধু ছড়া নিয়ে কোনো ছড়ার কাগজ গড়ে ওঠেনি। সাহিত্যপত্রে যদিও ছড়ার উপস্থিতি লক্ষণীয়। এমন কি স্কুল-কলেজ বর্ষিকীতেও ছড়ার ছড়াছড়ি।

কিন্তু দোলালাগা ছন্দে নেচে ওঠা শব্দাবলির জন্য একটা নিয়মিত কাগজ থাকার অনুষঙ্গ ও অনুঘটক টাউন শেরপুরে আছেন। ছড়ার একটা নিজস্ব চাতাল থাকলে স্থানিকে আমরা ভালো ভালো ছড়াকারদের হয়তো পেতাম। শুধুমাত্র পরিসরের অভাবে কত ছড়াকার ঝরে যাচ্ছে, তার কোনো ইয়াত্তা নাই।

তা না থাকুক, যা আছে তা নিয়ে বরং : একটু একটু খোলসা করি। টাউন শেরপুরে ‘চারুধ্বনি ছড়া পরিষদ’ নামে ছড়াকারদের একটি সংগঠন থেকে ১৪২৬ সালে একটি ছড়াপত্র বের করলেও নানা সাংগঠনিক জটিলতায় ধারাবাহিকতা থাকেনি।

.

কথার দ্বারাই মানুষ হাসে

কথার দ্বারাই কাঁদে

কথার দ্বারাই লোত সমাজে

ঝগড়া বিবাদ বাঁধে।

(কথা : নূরুল ইসলাম মনি)

খুকুর নুপুর টাপুর টুপুর

বৃষ্টি ঝরার শব্দ

গ্রীষ্ম দুপুর ঘুমের পাকুর

নাচের তালে জব্দ।

(নাচের নুপুর : আইয়ুব আকন্দ বিদ্যুত)

.

শাক নিয়ে যাও শাক

ইলিশ মাছের দাম যে চড়া

হাট বাজারে মেজাজ চড়া

শাকেই থেমে যাক।

(প্রেষণা : আশরাফ আলী চারু)

.

সম্পাদক ছড়াকার মোস্তাফিজুল হকের প্রযত্নে এই একটি মাত্র ছড়ার কাগজ ‘চারুধ্বনি সাহিত্য পত্র’। নূরুল ইসলাম মনি, আইয়ুব আকন্দ বিদ্যুত কিংবা আশরাফ আলী বা মোস্তাফিজুল হক টাউন শেরপুরে দাপিয়ে ছড়া লিখছেন। লিখছেন জাতীয় কাগজে।

স্থানিক ছড়াকারদের ছড়া নিযে কোনো আলোচনা বা লেখাপত্র চোখে পড়েনি। নূরুল ইসলাম মনি দীর্ঘদিন ধরে কবিতা ছড়া লিখছেন, তিনি কবিতার চেয়ে ছড়াতেই প্রশস্ত। মনির বেড়ে ওঠা গত শতকের আটের দশকে। এ সময়ের টাউন শেরপুরের ছড়া নিয়ে নিশ্চয় কেউ এগিয়ে আসবেন।

আশরাফ আলী চারু ছড়া ছাড়াও শিশুদের জন্য ‘টুনটুনির পাঠশালা’ (২০১৮) একটি গল্পগ্রন্থ বের করেন। আইয়ূব আকন্দ বিদ্যুত গত শতকের নয়ের দশকে ‘দহন’ (১৯৯৩) নামে একটি এক ফর্মার কাগজ করেছিলেন। ধারাবাহিকতা থাকেনি। প্রত্যাশা সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সংসদের ব্যানারে তিনি এই কাগজের সম্পাদনা করেন।

পরবর্তী সময়ে যুক্ত হয়ে পড়েন কবি সংসদের সাংবার্ষিক কর্মতৎপরতায়। শেরপুরে যে ক’টি সাহিত্য গোষ্টী সক্রিয়—কবি সংসদ তাদের একটি। এই স্থানিকে নিয়মিত কবি ও কবিতা নিয়ে কাজ করা চাট্টিখানি কথা নয়—কী কতটুকু হলো সেটি বড় প্রশ্ন নয় বরং প্রশ্ন আইয়ুব আকন্দ বিদ্যুতেরা কাজ করে যাচ্ছেন আগামী তরুণের জন্য।

সম্পাদক মোস্তাফিজুলের লেখালেখি ছাত্রজীবন থেকেই। ‘ইচ্ছে ডানার পাখি’ ছড়াগ্রন্থ ২০১৭ সালের অমর একুশে বইমেলায় প্রকাশিত হয়। এ ছাড়া তিনি দুই হাতে লিখছেন গল্প ও বিশ্বসাহিত্য থেকে অনুবাদ করছেন শিশুতোষ নানা গল্প।

অনূদিত শিশুতোষ গল্প নিয়ে ২০২০ সালে তাঁর একটি গল্পগ্রন্থ প্রকাশিত হয়। স্থানিকে যারা ছড়া লিখছেন তাদের ভেতর মোস্তাফিজুল হকের লেখায় বিষয় বৈচিত্র নানামুখী যেমন আছে, তেমনি তার তাল লয় মাত্রাজ্ঞান প্রখর।

(চলবে)

…………………

পড়ুন

কবিতা

রাংটিয়া সিরিজ : জ্যোতি পোদ্দার

তিলফুল : জ্যোতি পোদ্দার

জ্যোতি পোদ্দারের কবিতা

প্রবন্ধ-গবেষণা

টাউন শেরপুরে প্রথম রবীন্দ্রজয়ন্তী

শেরপুরে ছোটকাগজ চর্চা

১ম পর্ব । ২য় পর্ব । ৩য় পর্ব । ৪র্থ পর্ব । ৫ম পর্ব । ৬ষ্ঠ পর্ব । ৭ম পর্ব । ৮ম পর্ব । ৯ম পর্ব । ১০ পর্ব । ১১তম পর্ব । ১২তম পর্ব । ১৩তম পর্ব । ১৪তম পর্ব । ১৫তম পর্ব । ১৬তম পর্ব । ১৭তম পর্ব । ১৮তম পর্ব । ১৯তম পর্ব । ২০তম পর্ব । ২১তম পর্ব । ২২তম পর্ব । ২৩তম পর্ব । ২৪তম পর্ব

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন...