shubhobangladesh

সত্য-সুন্দর সুখ-স্বপ্ন-সম্ভাবনা সবসময়…

জলজগাথা

Aquatic ballads
Aquatic ballads

জলজগাথা

প্রদীপ আচার্য

জলজগাথা

দুপুর গড়িয়ে যেতেই কুমারছড়া বাজারে কানাঘুষা শুরু হয়। লক্ষ্মীন্দর গায়ে একটা পুরনো হালকা ধূসর চাদর জড়িয়ে বাজারে, সিকদারের চায়ের দোকানে এসে বসে। পাঁচ টাকার ড্রাই কেকের প্যাকেটে ছোট দুটো ড্রাই কেক আর এক কাপ দুধ চা দিয়ে বৈকালিক নাশতা সারে।

চা, ড্রাই কেক খেতে খেতে বোঝার চেষ্টা করে কাহিনি। সিকদারের দোকানেই বিষয়টা নিয়ে কথা হয়। ভোর রাতে নদীর পাড়ে সীমান্তরক্ষীরা নাকি বেশ-কিছু মাদক জব্দ করেছে। সীমান্তরক্ষীদের আসার খবর পেয়ে কারা যেন মাদক ফেলে পালিয়ে গেছে।

শোনা যাচ্ছে, কাল থেকে নদীতে মাছ ধরা নিষেধ। নদীতে যদি মাছ ধরা বন্ধ কইরা দেয়, তয় আমাগো কি দশা হইব!

—কণ্ঠে উত্তেজনা, অনিশ্চয়তা আর হতাশা মিশিয়ে কথাগুলো বলে হরিনাথ।

কুমারছড়া বাজারের সাথে লাগানো জেলে পাড়া। একসময় এ জেলে পাড়ার নাম ছিল শান্তিপদের বাড়ি। কাল পরিক্রমায় এখন এ-পাড়ার নাম এসে ঠেকেছে জ্যাইল্লা পাড়ায়। আনুমানিক ষাটটি জেলে পরিবারের বাস এ-পাড়ায়। অধিকাংশেরই জীবিকা সুখখালি নদীতে মাছ ধরা।

লক্ষ্মীন্দর চাদরের ভেতর হাত ঢুকিয়ে শার্টের পকেট থেকে দশ টাকার একটা নোট বের করে দেয় দোকানিকে। বাড়িতেই বিষয়টা কানে এসেছিল, বাজারে এসে তার সত্যতা টের পায় সে। দোকানের এমন সরব আলোচনায় তেমন অংশ না-নিয়ে ভাবতে থাকে নীরবে। এ কোন নতুন অনিশ্চয়তা ভর করতে যাচ্ছে জেলে পাড়ার পরিবারগুলোতে! চুপচাপ বাজার থেকে বেরিয়ে সে নদীর দিকে হাঁটে।

শীতটা বেশ পড়তে শুরু করেছে এবার। রাত বাড়তে বাড়তে টিনের চালের উপর কুয়াশার ফোঁটা বৃষ্টির মতো ঝরে। মোটা কাঁথা বিছিয়ে বিউটিকে নিয়ে নিচে শোয় রাজরানী। খাটে লক্ষ্মীন্দর আর  বিশ্বজিত। শীতের প্রকোপ, সাথে সামনের অনিশ্চিত সময়ের কথা ভেবে ঘুমহীন রাত কাটে রাজরানীর।

আজ দশ দিন চলে গেল নদীতে মাছ ধরা বন্ধ। যত দিন যায় সময় কঠিন হয়ে আসে আরো। ঘরে সামান্য যা চাল-ডাল ছিল তাও শেষ হয়েছে সেই কবে, মুদি দোকানি সাফ জানিয়েছে আর বাকি দেবে না।

এসব চিন্তায় রাজরানীর ঘুমহীন রাতের প্রহর কখন ভোরের দিকে উঁকি দেয় টের পায় না সে নিজেই। হঠাৎ মুখে শীতল হাতের স্পর্শ পায় রাজরানী। লক্ষ্মীন্দর খাট থেকে নেমে জড়োসড়ো হয়ে ঢুকে পড়ে রাজরানীর লেপের ভেতর।

কী করো, পোলা-মাইয়া জাইগা উঠব!—ফিসফিসিয়ে বলে রাজরানী।

তুই চুপ কর, পোলা-মাইয়ার আর খাইয়া-দাইয়া কাম নাই, মায়ে-বাপে কী করে, তা দেখার লাইগা জাইগা থাকব রাইতভর!—রাজরানীর কানের কাছে কথাগুলো বলে তার কানের লতিতে আলতো করে দাঁত কাটে লক্ষ্মীন্দর। মাথায় জমে থাকা দুঃচিন্তা ক্ষনিকের জন্য দুজনের শরীর বেয়ে শূন্যে মেলায় দ্রুত।

আজকাল নদীতে যাওয়ার তাড়া নেই। বেলা করে ঘুম থেকে ওঠে লক্ষ্মীন্দর। রাজরানী এককাপ লাল চা আর ঠাণ্ডা পরোটা দেয় খেতে। পাড়ার চায়ের দোকানি পরোটা বাকি দিতে চায় না। রাজরানী বলে-কয়ে কয়েকটা বাসি পরোটা নিয়ে আসে। চা খেতে খেতে সে লক্ষ্মীন্দরকে জিজ্ঞেস করে, শুকলাল যে তোমাকে খুঁইজতে আইছিল, তার লগে কথা হইছে?

হ। হইছে, হে একডা কামের কথা কইতেছিল।—উত্তর দেয় লক্ষ্মীন্দর।

কী কাম?—প্রশ্ন করে রাজরানী।

কী একটা জিনিস নাকি একজনরে পৌঁছাইয়া দেওন লাগবো, ঠিক বুঝতাছি না, হের লাইগ্যা নাকি ভালা টাকাও পামু!

দেইখো আবার কোনো ঝামেলা না তো?—রাজরানীর কণ্ঠে শঙ্কা ঝরে।

হ, তাই ভাবতাছি। দেখি কী করন যায়। আরেকটু বেলা বাড়লে ঘাটের দিকে যামু। শুকলাল ঘাটে থাকব কইছে। তুই অত কিছু ভাবিস না। কিছু একটা করুম আমি।—কথাগুলো বলতে বলতে রুমের দিকে উঁকি দেয় লক্ষ্মীন্দর। বিউটি খাটে উঠে গেছে, ভাইয়ের পাশে, জড়োসড়ো। দুজন তখনো ঘুমে।

নদীতে বাতাস নেই, কনকনে ঠাণ্ঠা। স্রোতও স্থির। জেলেপাড়ার ছোট নৌকাগুলো ঘাটে ঝিমুচ্ছে। ঘন কুয়াশা জলের ওপর ধোঁয়া হয়ে ভাসছে। অদূরেই মোহনা। নদীর উপর গাঙচিল উড়ছে, মওকা বুঝে ছোঁ মারবে শান্ত জলের বুকে। পাড়ের কোথাও আবার হাঁটুজলে দাঁড়িয়ে আছে দু’একটা গাঙচিল। ঘন কুয়াশায় চেনা যাচ্ছে না সুখখালি নদীকে। মনে হচ্ছে, এ নদীর ওপার বলতে কিছু নেই।

বেলা বাড়লে নদীর ঘাটে আর প্রতিদিনকার মতো ব্যস্ততা নেই। স্পিড বোটে যাত্রিরা ওঠা-নামা করছে। নদীর মোহনা হয়ে সাগরের বুকে ভেসে দ্রুত পৌঁছে যাবার তাড়া যে যার গন্তব্যে।

আবার কবে নদীতে মাছ ধরার অনুমতি মিলবে কেউই বলতে পারছে না। লক্ষ্মীন্দর ঘাটে আসে। খেয়াল করে তার শরীর মনে কোনো চাঞ্চল্য নেই। ভেতরে জমে থাকা হতাশা দীর্ঘশ্বাস হয়ে গড়ায়। গত দুদিন ধরে মোবাইল বন্ধ, মোবাইলে টাকা নেই। শুকলালকে খুঁজতে থাকে সে। হঠাৎ পেছন থেকে পরিচিত কণ্ঠ কানে আসে।

দাদা, আমারে খুঁজতাছো? এই তো আমি।

লক্ষ্মীন্দর ঘুরে তাকায়। শুকলাল। লক্ষ্মীন্দরের ছোট ভাই। সে কখনো জেলে পেশায় আসেনি। লক্ষ্মীন্দরই পৈত্রিক পেশাটাকে ধরে রেখেছে লালিত কষ্টে। দু’বছর হলো শুকলাল জেলে পাড়ায় থাকে না আর। ঘাটের কাছের গ্রামটাতে জায়গা কিনে ঘর বানিয়ে পরিবার নিয়ে সেখানেই থাকে। শুকলাল ঘাটের জটলা থেকে একটু দূরে সরিয়ে নিয়ে যায় লক্ষ্মীন্দরকে। হাতে ছোট প্যাকেটের মতো কিছু একটা ধরিয়ে দেয়। চাদরের ভেতরে সেটা ঢুকিয়ে নেয় লক্ষ্মীন্দর। আর একটা ছোট কাগজ পুরে নেয় শার্টের পকেটে। মুহূর্তের মধ্যে পুরো ঘটনা ঘটে। যাবার আগে লক্ষ্মীন্দর বলে, ভাই, কোনো অসুবিধা হইব না তো?

শুকলাল উত্তর দেয়, এত ভাইবো না তো, এভাবে কাম ছাড়া তুমি বইয়া থাকলে তো না খাইয়া মরবা। কোনো অসুবিধা হইব না, ঠাকুর সহায়! জিনিসটা ঠিকঠাক মতো পৌঁছাইয়া দাও, তিন হাজার টাকা পাইবা। হে টাকা দিয়া তো কিছুদিন চলতে পারবা, পরেরটা পরে দেখা যাইব। এখন তুমি যাও। এয়ানে বেশিক্ষণ আর থাইক না।

দু’ভাই দু’দিকে হাঁটা দেয় মুহূর্তেই। গন্তব্য ভিন্ন তাদের।

দুপুর বারোটার দিকে জেলে পাড়ায় হঠাৎ আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। খবর রটে যায় লক্ষ্মীন্দর ইয়াবাসহ ধরা পড়েছে পুলিশের হাতে। পুলিশ তাকে থানায় নিয়ে গেছে এবং জেলে পাড়ায় এসে নাকি বাড়ি বাড়ি তল্লাশি করবে।

কেউ কেউ বলাবলি করছিল, লক্ষ্মীন্দরের পরিবারের সবাইকে হয়তো ধরেও নিয়ে যাবে। খবরটা শোনার সাথে সাথে মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে রাজরানীর। দৌড়ে ছুটে যায় পাড়ার সর্দার বিষ্ণুপদের কাছে।

আপাতত পোলা-মাইয়া লইয়া আশে-পাশে কোথাও লুকাইয়া থাক। বাকিটা আমি দেখতাছি।—কথাগুলো এক নিঃশ্বাসে বলে যায় বিষ্ণুপদ।

মা লক্ষ্মী বেজার হইছে। আইজ বেস্পতিবার। লক্ষ্মীপূজাটা আর দিতে পারুম না আইজ।—বিড়বিড় করে কথাগুলো বলতে বলতে বেড়ার দরজায় ছোট তালা লাগিয়ে বিউটিকে সাথে নিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে বিশ্বজিতকে খুঁজতে থাকে রাজরানী। কোথায় যাবে জানে না নিজেও।

পাড়ায় পুলিশ এসে কয়েকটি বাড়ি তল্লাশি করে যায়। বিষ্ণুপদ সর্দার যতটা পারে পুলিশকে শান্ত করার চেষ্টা করে, অনুরোধ করে লক্ষ্মীন্দরের পরিবারকে যেন হেনস্তা না করা হয়। পুলিশ  চলে গেলে বিষ্ণুপদ গোপনে খবর পাঠায় রাজরানীর কাছে। বিকেলের মধ্যে যেন লক্ষ্মীন্দরের পরিবারকে থানায় গিয়ে দেখা করতে হবে, নতুবা তারা তল্লাশির জন্য আবার জেলে পাড়ায় আসবে।

লক্ষ্মীন্দরকে পরের দিন সকালে জেলে চালান করা হবে। রাজরানী দৌড়ে আসে বিষ্ণুপদের কাছে। হুনো, পুলিশের অত্যাচার বন্ধ করতে হইলে তাগো কিছু টাকা দেওনই লাগব। আর লক্ষ্মীন্দররে ছাড়ানোর কথা পরে ভাবন যাইব।—বলে বিষ্ণুপদ।

তার কথাগুলো রাজরানীর কাছে বড় অপরিচিত শোনায়। শুকলালের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়। তার ফোন বন্ধ। লক্ষ্মীন্দর ধরা পড়ায় সে গা ঢাকা দিয়েছে। কী করবে বুঝতে পারে না রাজরানী।

তার নিদারুণ অসহায়ত্ব মাপার জন্য বিষ্ণুপদের আর তার মুখের দিকে তাকাতে হয় না। জাল আর জলের জীবনে পুরোটা সময় কাটিয়ে দিয়ে সময়ের সাক্ষী হয়ে আজ তাকেই বয়ান করতে হয় জেলে জীবনের বিপর্যয় কথকতা, পিতা হবার ভারত্ব যে আজীবন উপলব্ধি করেছে—শরীরে মাছের গন্ধ শুঁকে।

বিষ্ণুপদ বলে, এক কাম কর, তুমি গফুর মাঝির কাছে যাও। এ সময়ে হেয় একমাত্র জন যে টাকা ধার দিতে পারব। বিষ্ণুপদ গফুর মাঝিকে ফোনে সব বলে।

গফুর মাঝির সাগরে মাছ ধরার বেশ কয়েকটা ট্রলার আছে। দ্বীপে শুটকি শুকানোর মাঠও আছে। আছে আরো নানান ব্যবসা। জেলে পাড়ার অনেকে তার ট্রলারে দিনমজুর খাটে। জেলে পাড়ার লোকেরা তাকে ডাকে গফুর বাবু। এক সপ্তা’র মধ্যে টাকা ফেরত দেয়ার শর্তে বাবু রাজরানীকে তিন হাজার টাকা ধার দেয়।

জেলে পাড়ায় পুলিশের হয়রানি আপাতত বন্ধ হয়। রাজরানী ছেলে-মেয়ে নিয়ে ফিরে আসে বাড়িতে।

চারদিন পর সর্দার কাকা আর রাজরানী জেল গেটে দেখা করতে যায় লক্ষ্মীন্দরের সঙ্গে। এ কদিনে লক্ষ্মীন্দরের চেহারা এমন হয়েছে যে, তাকে চেনা যায় না প্রায়। সে ঘুমের মধ্যে দুঃস্বপ্নের কথা বলে রাজরানীকে। বলে, আমারে ছাড়ানোর ব্যবস্থা কর। তার চোখে-মুখে কেমন এক শঙ্কা কাঁপে।

রাজরানী কান্না লুকায় তার আটপৌরে শাড়ির আঁচলে। তুমি অত ভাইবো না। খুব তাড়াতাড়ি তোমারে এইখান থেইক্যা ছাড়ানোর ব্যবস্থা চলতাছে। আমি আর কাকা এখান থেইক্যা উকিলের কাছে যামু।

—অভয় দেয় রাজরানী। চলে যাবার সময় লক্ষ্মীন্দর রাজরানীকে ডাকে, হুইন্না যাও।

রাজরানী মুখ ঘুরিয়ে বলে, কিছু কইতাছ?

হ। আর কয়দিন পরেই না আমাগো বিউটির জন্মদিন?

হ, পৌষের ছাব্বিশ তারিখ।—উত্তর দেয় রাজরানী।

কয় বছরে পড়বো আমার মাইয়াডা?

আট বছরে।

ডাঙ্গোর হইয়া যাইতাছে মাইয়াডা!—বিড়বিড় করে লক্ষ্মীন্দর। বলে, হোনো, হের জন্মদিনের দিন যদি পার তো তারে খানিকটা গুড়ের পায়েস বানাইয়া দিও।

হ, দিমু। আর ভগবানকে ডাকো তার আগে যেন তোমারে ছাড়াই লইতে পারি।—ধরা গলায় বলে রাজরানী। অশ্রু আর শাড়ির আঁচলের আড়াল মানে না তার। লক্ষ্মীন্দরের দৃষ্টি এড়িয়ে চোখ মুছে দ্রুত চলে যায় রাজরানী। লক্ষীন্দর অপলক তাকিয়ে দেখে তার চলে যাওয়া।

সপ্তাহ পেরিয়ে যেতেই বাবুর লোক আসে জেলে পাড়ায়। রাজরানীকে দেখা করতে বলে বাবুর সাথে। এদিকে খবর আসে নদীতে আবার মাছ ধরার অনুমতি মিলেছে। পাড়ার লোকেদের মুখে হাসি ফেরে আবার।

রাজরানী প্রতিদিন সর্দার কাকার বাড়ি যায়। যদি কোনো উপায় বের হয়! গফুর বাবু সর্দারের কাছে ফোন করে টাকা ফেরত দেয়ার জন্য। সর্দার রাজরানীকে বলে গফুর বাবুর সাথে তার মাছের আড়তে দেখা করতে।

দুপুরের দিকে ব্যস্ততা কমে এলে রাজরানী ছেলে-মেয়েকে বাড়িতে রেখে বটের টেকের দিকে যায় বাবুর আড়তে। ভোর থেকে ব্যস্ততম এ জায়গায় দুপুর হতে-না-হতেই নেমে আসে নীরবতা।

আড়তের পেছনে বাবুর বিশ্রামের জায়গা। বাবুর সাথে দেখা করতে চাইলে একজন বাবুর বিশ্রামের জায়গায় নিয়ে যায় রাজরানীকে। বাবু তখন মোবাইলে ফেসবুকিংয়ে ব্যস্ত। রাজরানীসহ লোকটি রুমে ঢুকতেই বাবুর ইশারায় সে রাজরানীকে রেখে তৎক্ষণাৎ বাইরে বেরিয়ে যায়, আলতো করে দরজা বাইরে থেকে টেনে দিয়ে যায়। রুমের ভেতরে বাবু আর রাজরানীর হালকা কথা-বার্তা শোনা যায় বাইরে থেকে।

আচমকা রাজরানী রুম থেকে বের হতে চাইলে হাত টেনে ভেতরে ঢুকিয়ে নেয় আবার বাবু। বলে, আমার কথা মাইন্যা নাও। নইলে সোয়ামিরে আর জেল থেইক্যা ছাড়াইতে পারবা না। ভেতর থেকে দরজা বন্ধের তীব্র শব্দে রাজরানীর কণ্ঠের হাহাকার ক্ষীণ হয়ে আসে। নীরবতা নামে সহসা। নির্বিঘ্ন হয় বাবুর যৌনসম্ভোগ।

বাবুর দিক থেকে আপাতত টাকা পরিশোধের চাপ কমে আসে। তবে সে শর্ত দেয়, রাজরানীর ছেলে বিশ্বজিতকে টেকের দ্বীপে তার আড়তে কাজে দিতে হবে। যতদিন না রাজরানী টাকা ফেরত দিতে পারবে, ততদিন বিশ্বজিত এখানে পেটে-ভাতে কাজ করবে, আর তার দৈনিক মজুরির বিনিময়ে টাকা পরিশোধ হলে তাকে ফেরত দেবে।

রাস্তার মাথায় বিশ্বজিতকে নিয়ে যাবার জন্য অপেক্ষা করে বাবুর চেলারা। রাজরানী বিশ্বজিতকে নিয়ে সেদিকে যায়। বিশ্বজিত তাদের সাথে চলে গেলে রাজরানী পেছন থেকে সন্তানের চলে যাওয়া দেখে অঝোরে কাঁদে।

রাস্তার পাশের কৃষ্ণচূড়ার ছায়া, গাছের কচি পাতা আর প্রথম ফুলের লাল কলিও তার ক্রন্দনরত মাতৃহৃদয়কে শান্ত করতে পারে না। জন্মের পর থেকে বারো বছরে এই প্রথম মায়ের বুক থেকে বেরিয়ে বিশ্বজিতের চলা শুরু হয় অনিশ্চিত গন্তব্যের দিকে।

কিছুই করার নেই রাজরানীর। তার কানে ভাসে চলে যাবার আগে মাকে জড়িয়ে ধরে বিশ্বজিতের আর্তনাদ, মা! আমি তোমারে ছাড়া থাকতে পারুম না…             

ছোট দ্বীপ, টেকের দ্বীপ। সে দ্বীপে গফুর মাঝির শুটকি শুকানোর কাজ। সেটি ঘিরে শ্রমিকদের থাকার ছোট ছোট ঘর এখানে-সেখানে। দ্বীপে নতুন কেউ পা রাখলে প্রথম দিকে নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হয়। কীটনাশক মেশানো পানি দিয়ে কাঁচা মাছ শুকানো হয়।

কোথাও তৈরি আছে মাচান, আবার কোথাও বাঁশে ঝোলানো হয় মাছ। বাঁশের ডগায় বসা মাছখেকো পাখিগুলোর আগ্রহ নেই শুকাতে দেয়া এসব মাছে।

এখানে আসার পর বিশ্বজিতের চোখ জ্বলতে থাকে, মাথা ঝিমঝিম করে, দুয়েকদিন পর আস্তে আস্তে সয়েও যায়।

এ-আড়তে বিশ্বজিতের বয়সী অনেকেই কাজ করে। শুটকির ঘরেই দুপুরে খেতে বসে সকলে। টমেটো দেওয়া ডালের সাথে শুটকির তরকারি। মা আর বোনের জন্য নীরবে কাঁদে বিশ্বজিত। স্কুলের কথা ভুলেই যায় প্রায়। এখানে তবু দু’বেলা খাবার পাচ্ছে সে। এটুকুই-বা কম কী!

প্রতিদিন সে হিসেব করতে থাকে বাবুর কাছ থেকে ধার নেয়া টাকা পরিশোধে কত টাকা শোধ হলো। প্রতিদিনের এ হিসেব কখন যে তার স্বপ্নপূরণের আকাঙ্ক্ষায় পরিণত হয়, খেয়ালই করে না বিশ্বজিত।

দুপুরের পর বাড়ির উঠোনে রাজরানী লক্ষ্মীন্দরের ছেঁড়া জালটা সেলাই করতে বসে। জেল থেকে ছাড়া পেয়ে তো নদীতেই নামতে হবে মাছ ধরতে; আরো কতো ভাবনা, স্মৃতি হানা দেয় তার মাথায়।

জালের এ-জীবন তার কাছে অভিশাপের মতো লাগে। এ যেন জাল নয়, ছেঁড়া আর ফুটো জীবন সেলাই করে সে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত।

সেদিন পড়ন্ত বেলায় নীরব দুপুরে গফুর মাঝির বিশ্রামের সময়টুকু তার শরীর থেকে ধুয়ে মুছে গেলেও মন থেকে সরাতে পারে না কিছুতেই। এর মধ্যে একদিন বিউটিকে সঙ্গে নিয়ে গফুর মাঝির আড়তে যায় সে। গিয়ে দেখে পুলিশের সাথে গফুর মাঝির আলাপ। দেখে বুঝা যায় বেশ ভাল সম্পর্ক তার পুলিশের সাথে।

গফুর মাঝির কাছে অনেক অনুনয় করে রাজরানী, কান্না চেপে রাখতে পারে না আর। গফুর মাঝি তাকে আশ্বস্ত করে, লক্ষ্মীন্দরকে ছাড়ানোর চেষ্টা করবে সে। কিন্তু শর্ত দেয়, আগামীকাল বিউটিকে নিয়ে যেতে হবে গফুর মাঝির কাছে। নিজের রক্ষাকবচ হিসেবে বিউটিকে নিয়ে গিয়ে এ কোন নতুন আতঙ্ক তৈরি করল, ভেবে দিশেহারা বোধ করে রাজরানী।

কাল ছাব্বিশ পৌষ। বিউটির জন্মদিন। কালই নিয়ে যেতে হবে বিউটিকে! গফুর মাঝি কয়েকদিন এলাকায় থাকবে না। তবে লক্ষ্মীন্দরকে ছাড়িয়ে আনার সব ব্যবস্থা করবে সে, কথা দেয়।

গফুর মাঝি ধূর্ত লোক। কাঁচা কাজ করে না। রাজরানীকে বুঝায়, লক্ষ্মীন্দরকে জেল থেকে ছাড়িয়ে আনার এই মোক্ষম সুযোগ। সময় এবং সুযোগ সবসময় ধরা দেয় না। শেয়ালটার কথা ভাবতে ভাবতে রাজরানী বিউটির দিকে তাকায়।

বাড়ির উঠোন-কোণে সে বান্ধবীদের সাথে গুটি খেলছে। বান্ধবীদেরও জানিয়েছে কাল তার জন্মদিন। মেয়ের মুখের দিকে তাকিয়ে মনের ভেতর দ্বিধার হুল টের পায় রাজরানী। কী করবে সে!

গফুরের কথা মতো কি বিউটিকে নিয়ে যাবে তার কাছে, নাকি স্বামীকে জেল থেকে মুক্ত না-করে অনিশ্চিত সময়ের পথে হাঁটবে! সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় আর বেশি নেই, হাতে মাত্র একটা রাত।

শকুনের থাবায় এগিয়ে দেবে মেয়েকে?—ফিসফিসিয়ে নিজেকেই প্রশ্ন করে সে। বিশ্বজিত কেমন আছে জানে না সে। এতসব ভাবনায় শক্ত হয় রাজরানীর চোয়াল।

সে রাতে টেকের দ্বীপে সবাই ঘুমিয়ে। রাত প্রায় দশটা। হঠাৎ ফিসফিসানি শুরু হয়ে তা বাড়তে বাড়তে শব্দ জোরালো হয়ে আসে। পালা, পুলিশ আইছে। পুলিশ হানা দিছে দ্বীপে। গফুর মাঝির আড়তে ইয়াবা লুকানো আছে!

শ্রমিকরা যেদিকে পারে পালায়। ঘুম ভাঙ্গে বিশ্বজিতের! কী করবে সে। কে যেন বলে ওঠে, এখনো বইসা আছস, যেদিকে পারস পালা, নয়তো আমার লগে আয়।

বিশ্বজিত ছুটতে থাকে দিকবিদিক, দৌড়াতে দৌড়াতে সাগরের তীরে গিয়ে দাঁড়ায়। কণ্ঠ শুকিয়ে আসে তার। সামনে সমুদ্রের অবারিত জল। আকাশে-বাতাসে ধ্বনিত হয় তার ব্যাকুল কণ্ঠ, মা!

বিশ্বজিত! বাবা আমার!—মার আর্তনাদ কানে আসে বিশ্বজিতের।

মা-ছেলের মিলনের করুণ আর্তিতে সাড়া দেয় সমুদ্রও। অবারিত জলের ফেনিল আঁচল বিছিয়ে সে মুহূর্তেই বিশ্বজিতকে লুফে নেয় তার জলজ বুকে।

জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথাজলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা জলজগাথা

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন...