shubhobangladesh

সত্য-সুন্দর সুখ-স্বপ্ন-সম্ভাবনা সবসময়…

কসবা সীমান্তে ১২ জনকে পুশইনের চেষ্টা

Pusin
Pusin

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি : কসবা সীমান্তে ১২ জনকে পুশইনের চেষ্টা করছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)।

এ ঘটনায় বিএসএফের সঙ্গে পতাকা বৈঠক করেও সমাধান না-হওয়ায় সীমান্তে টহল জোরদার করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

শনিবার (১১ জুলাই ২০২০) সন্ধ্যা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা সীমান্তে দুই দেশের শূন্যরেখায়—

একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে অবস্থান করছেন ওই ১২ নারী-পুরুষ ও শিশু।

বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, শনিবার (১১ জুলাই ২০২০) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া কসবা উপজেলা সদরের হাকর সীমান্তের ২০৩৯/১২-এস পিলার এলাকা দিয়ে ১২ জন নারী-পুরুষ ও শিশুকে বাংলাদেশে পুশইনের চেষ্টা করে বিএসএফ।

বিজিবির টহল দলের সদস্যরা এতে বাধা দেন। ওই দিন সন্ধ্যায় বিজিবি ও বিএসএফের মধ্যে পতাকা বৈঠক হয়।

বৈঠকে বিএসএফ সদস্যরা ওই ১২ জন নারী-পুরুষ ও শিশুকে বাংলাদেশের নাগরিক বলে দাবি করেন।

কিন্তু বিজিবি সদস্যরা জানান, ওই ১২ জন বাংলাদেশি নন। পতাকা বৈঠকের পর বিজিবি সীমান্তে টহল জোরদার করেছে।

কসবা সীমান্তে ১২ জনকে পুশইনের চেষ্টা, বিজিবি বক্তব্য

বিজিবির ৬০ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এস এম মেহেদী হাসান বলেন, ভারত সীমান্তের দিক থেকে ১২ জন নারী-পুরুষ বাংলাদেশে ঢোকার চেষ্টা করেছিল।

বিএসএফকে বলা হয়েছে তাদেরকে নিয়ে যাওয়ার জন্য। বিএসএফ আমাদেরকে বলেছে তাদেরকে নেওয়ার জন্য।

আমরা বলেছি, এভাবে আমরা নিতে পারব না। এটি অবৈধ প্রবেশ হয়ে যায়।

এর আগের একটি ঘটনায় পুশইন করার চেষ্টাকে অনাকাঙ্ক্ষিত বলেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ ফেনী নদী সীমান্ত দিয়ে তাদের এক মানসিক প্রতিবন্ধী নাগরিককে বাংলাদেশে পুশইন করার যে চেষ্টা করেছে—

তাকে অনাকাঙ্ক্ষিত বলে আখ্যায়িত করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

কোভিড-১৯ মোকাবিলায় বাংলাদেশকে চিকিৎসা সহায়তা সরবরাহের জন্য ভারতীয় হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে গত ৬ মে ২০২০ তারিখে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ কথা বলেন।

ড. মোমেন বলেন, এ ধরনের ঘটনায় দুদেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে।

এ ধরনের ঘটনা ভবিষ্যতে যাতে না ঘটে সে বিষয়ে ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনীকে সতর্ক করতে হাইকমিশনারকে অনুরোধ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এ-সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী করোনার বিষয়ে উল্লেখ করেন, ভারত থেকে আসা ৬১ জন ড্রাইভার ও তাদের সহযোগীকে মানবিক কারণে বাংলাদেশ সরকার থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করেছে।

তাদেরকে দ্রুত ভারতে ফেরত নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করেন তিনি।

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন...