shubhobangladesh

সত্য-সুন্দর সুখ-স্বপ্ন-সম্ভাবনা সবসময়…

নাসিমা খাতুনের একগুচ্ছ কবিতা

Nasima Khatoon
Nasima Khatoon

একগুচ্ছ কবিতা

নাসিমা খাতুন

নাসিমা খাতুনের একগুচ্ছ কবিতা

ধর্মখেলা

শরীরের দেহজুড়ে ধর্মের বৈঠকখানা,

শীত, গ্রীষ্ম, বসন্ত—ধর্মমেলার বারমাসী ঋতু।

শরীরের কুঞ্জবনে ধর্মের আলখেল্লা,

রূপালি পর্দার মেজাজে বেজে উঠে স্বর্গীয় মন্ত্র।

.

শিকারি চোখ ধর্ম সভায় খোঁজে

পার্থিব লালসার ফর্দ।

মগজের ভাঁজে ভাঁজে হিসেবের আতর

আর পুঁজিবাদী আমলনামা—

কখনো ডান হাতে, কখনো বাম হাতে।

হৃদয়ের এবাকাস গোপন স্বরে

আবৃতি করে যায় শুধু লাভের নামতা।

.

বিধাতার পথ

ভোরের বিছানায় রোপন করেছিলাম

একটি সবুজ গ্রাম,

শালিকের ঠোঁটে বুনেছিলাম বৃষ্টির গান,

কলমিলতার কচি মনে এঁকেছিলাম

মেঠোপথের সরু আইল

সনাতনকালের আদিম সুখেরা হেঁটে হেঁটে

বুকের শালবনে আসবে বলে।

.

অন্ধ রাতের চিকন পলতের প্রদীপে সাজিয়েছি

সন্ধ্যের মেঘলা আকাশের কবিতা,

একটি আত্মভোলা উদাস দুপুর মন্ত্রপুত কৌটায় ভরে

তুলে রেখেছি অপলক চোখের ঠিকানায়—

মাঝে মাঝে বিছিয়ে রাখি দিগন্তের বুকে

যেখানে হাত বাড়িয়ে দাঁড়িয়ে আছে বিধাতার পথ।

.

পৃথিবীর কপালে জ্বর

আলোর ঝাঁপিতে বিষাক্ত রোদ

ফনা তুলে আছে ছোবলের সুখে,

শিশুর ঝুনঝুনিতে অভিশাপের সুর

মরা কটালের সংসারে দাসী হয়েছে যে মায়ের আঁচল!

.

নাভিতে পোড়া বারুদের গন্ধ,

এখনি ছত্রভঙ্গ হবে পাকস্থলীর আয়তন,

চন্দ্রকলার ছলাকলা ফেরার হতে উদ্যত করদ রাজ্যে।

.

ব্রহ্মাণ্ডের সমস্ত জ্বর আধিপাত্য করছে

পৃথিবীর কপালে,

দূরে আকাশের দিকে তর্জনী উঁচিয়ে গম্ভীর মুখে

স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে আছে আম্পায়ার।  

.

শোধ হবে

অনুজীব কি এতটাই শক্তিশালী

যতটা শক্তিশালী বিকৃত মগজের দূষিত ঘিলু?

পুরাতন ইতিহাস বেহায়ার মতো সাক্ষী হয়ে

দাঁড়িয়ে আছে রক্তের পুঁজ খেকো পিশাচদের

রক্ত চেরা করাতকলে।

.

মানবতার ফেনা শুধু

বইয়ের পৃষ্ঠায় শব্দের মলাটে

ভেতরে ঘুমায় মাকাল ফল।

.

বীভৎসতার পরিভাষাকে কোলে নিয়ে

প্রাচীন সভ্যতা সগর্ভে হেঁটে এসে দাঁড়িয়েছে

আধুনিক সভ্যতার বুকে পা রেখে

বিকৃত উৎকর্ষতার মণ্ডপে।

.

রক্ত চোষা ভ্যাম্পায়ার ব্যাট

আবহমান কাল ধরে অসহায়ের হিমোগ্লোবিন চুষে নিতে

দাবড়ে বেড়ায় ইতিহাসের পাতায়,

নিপীড়িতের রক্তের ফসিলে।

.

সভ্যতার জারজ সন্তানেরা নাপাক শরীরে

ভক্ষণ করে যাচ্ছে ঐশ্বরিক নাবালকের দেহ।

রক্তের নোনাজলে আজো ভাসে ফোরাতের শরীর—

ফিলিস্তিন কিংবা অন্য কোনো ক্ষত-বিক্ষত অঙ্গে।

.

সূর্যের ওমের গভীরে ঘনীভূত হচ্ছে

প্রকাণ্ড আগুনের ধ্বনি—

ভস্ম করতে বিশ্বের সকল এজিদের

জীবিত তরবারির ঝলকানি।

…………………

পড়ুন

কবিতা

নাসিমা খাতুনের তিনটি কবিতা

নাসিমা খাতুনের একগুচ্ছ কবিতা

Spread the love