shubhobangladesh

সত্য-সুন্দর সুখ-স্বপ্ন-সম্ভাবনা সবসময়…

সুমন বন্দ্যোপাধ্যায়ের কবিতাগুচ্ছ

Suman Bandyopadhyay

কবিতাগুচ্ছ

সুমন বন্দ্যোপাধ্যায়

সুমন বন্দ্যোপাধ্যায়ের কবিতাগুচ্ছ

শূন্য থেকে শূন্যের দিকে

একা মানুষের পাশে

নিঃশব্দে সরে আসে

ছায়া

.

ছড়ানো ছিটানো পাতাঝরা গাছ

শুকনো নদীর দীর্ঘশ্বাস

রোদটুকু আগলে দাঁড়ায়

চোখের আড়ালে

.

পায়ের ছাপ যতদূর যায়

ততদূর মায়া

.

একটা অদৃশ্য শূন্যের অন্তর

মানুষকে আরো শূন্য করে দেয়।

.

নীরব যে অস্ত্রভাষা

শূন্যতার বিন্দুবিসর্গ থেকে

উঠে আসছে যে রোদপাথর

তুমি তাকে সর্বনামে চেনো

.

জানো—কতদূর ছড়ানো জঙ্গল

.

ঝরা পাতাদের কাছে এসে

এভাবেই নিচু হয় বিষাদরমণী

.

খোলা চুল ওড়ে দূরের দিগন্তে

.

নীরবতা ভাঙতে পারোনি বলে

ভোঁতা হয়ে পড়ে আছে তোমার অস্ত্রাগার।

.

আত্মগোপন

গ্রীষ্ম আর কত প্রখর হবে?

.

তুমি শুধু শুধু ট্রিগার টিপে

অতর্কিতে লুটে নিলে

তরমুজের ক্ষেত

.

ধরপাকড়ের কথা উঠে আসতেই

নখের আড়ালে লুকিয়ে ফেললে

সন্ত্রাস দিন আর সহ্যাতীত রাত

.

তদন্ত জানে

মোমবাতি জানে

.

শুধুমাত্র তৃষ্ণা অপ্রাসঙ্গিক ছিল বলে

বৃষ্টিতে ভিজে গেছে তোমার অলঙ্কার।

.

সহজপাঠ

ভেঙে যাওয়া ব্রিজের শূন্যতায়

আলগা হয়ে যাচ্ছে পায়ের ছাপ

.

মনে রাখা জরুরি নয় বলে

.

একদিন ধুলো হয়ে যাবে

আমাদের মনখারাপ

.

শুকনো নদীর থেকে

পাথর কুড়িয়ে এনে

.

আমরা ভূগোল চেনাব বাচ্চাদের।

.

অশোক

বাবা চলে গেছেন বলে

মায়ের সিঁথির ভেতর

সূর্য ওঠে না আর

.

সাদা রঙ প্রিয় হয়

এক একটা শূন্য দুপুর

.

সমস্ত দিনের শেষে

সন্ধ্যা থেকে শোক নেমে আসে

.

দূরে কোথাও ফুটে ওঠে

অশোকের ফুল।

.

কৃষি

জোৎস্নাকে ঘুম বিক্রি করতে গিয়ে তুমি দেখলে

আশ্চর্য হাতখালি

.

দূরে বোরোধান লাগাচ্ছে চাষিরা

.

পায়ে কাদা নেই

শুধু তুমি শুয়ে আছো চিৎ হয়ে

.

বীজতলা শুকিয়ে এলে

মাটির যোনিতে ঘি ঢেলে

প্রদীপ জ্বেলে দিচ্ছে চাষিবউ।

…………………

আমন্ত্রণ

ভ্রমণ

Tour

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন...